শিক্ষার্থী মাহমুদাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন।

0
168
শিক্ষার্থী মাহমুদা

গাইবান্ধা সদর উপজেলার বোয়ালী ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের উত্তর ফলিয়া পুলবন্দি এলাকার মিঠু মিয়ার স্কুল পড়–য়া মেধাবী কন্যা মাহমুদা আক্তার (১৬) ছোটবেলা থেকে হাত-পা খিচুনী রোগে ভুগছে। ক্লাস ওয়ান থেকে ৭ম শ্রেণী পর্যন্ত এক রোলের মেধাবী মাহমুদা আক্তার খেলাধুলাতেও জেলা পর্যায়ে বেশ কয়েকটি পুরস্কার অর্জন করে। কিন্তু বয়স বাড়ার সাথে সাথে মাহমুদার হাত-পায়ের খিচুনী এবং মাথা ঘুরে পড়ে যাওয়া রোগটির প্রভাবও বেড়ে যায়। ফলে দক্ষিন কামারজানী হাই স্কুলে পড়তে যাওয়া বন্ধ রয়েছে। মেধাবী এই মেয়েটিকে সুস্থ করার আশায় তার পিতা-মাতার সহায় সম্বল, সোনা সবটুকুই বিক্রি করে বর্তমানে নিঃস্ব হয়েছেন। গত ১৫ এপ্রিল মাহমুদাকে গাইবান্ধা সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে দুই দিন থাকার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মাহমুদাকে রংপুর অথবা ঢাকায় নিয়ে উন্নত চিকিৎসা নেয়ার পরামর্শ প্রদান করেন। মাহমুদার পিতা মিঠু মিয়া জানান, তার মেয়ের চিকিৎসা করাতে গিয়ে তিনি বর্তমানে নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন। প্রায় ১২ দিন ধরে মাহমুদা কোন কিছুই খেতে পারছে না। দিনে ৩/৪ বার করে খিচুনী ওঠায় মাহমুদার মুখের জিহ্বা কুকড়ে গিয়ে কথা বলার শক্তিও হারিয়ে ফেলেছে। অত্যন্ত মেধাবী ফুটফুটে ফুলের মতো নিষ্পাপ মাহমুদাকে বাঁচাতে তার পিতা মিঠু মিয়া সমাজের বিত্তবান এবং দয়াবান মানুষদের নিকট ০১৭১৭৪৬১০৫ (বিকাশ এজেন্ট) নাম্বারে আর্থিক সহযোগিতা চেয়েছেন।(কপি পোস্ট) আমার পেইজে লাইক দিয়ে পাশে থাইকেন,যেন এভাবে হলেও মানুষের পাশে থাকতে পারি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here